পাঠাও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) লাইসেন্স পেয়েছে

রাইড শেয়ারিং সংস্থা পাঠাও লিমিটেড বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) লাইসেন্স (তালিকাভুক্তি শংসাপত্র) পেয়েছে।

গতকাল জারি করা সংস্থার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সরকারের রোড ট্রান্সপোর্ট নিয়ন্ত্রক সংস্থা থেকে লাইসেন্স পাওয়ার জন্য পাঠাও প্রথম বড় রাইড শেয়ারিং সংস্থা।

পাঠাওর সিইও এবং সহ-প্রতিষ্ঠাতা হুসেন এম ইলিয়াস বলেছেন, “বাংলাদেশের বৃহত্তম অন-ডিমান্ড ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম হিসাবে তালিকাভুক্ত করার আমরা বিআরটিএর কাছে কৃতজ্ঞ।”

“তালিকাভুক্তি শংসাপত্র আমাদের জীবনকে পরিবর্তিত করার এবং ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য আমাদের উদ্যোগের আরেকটি পদক্ষেপ”

পাঠাও সরকারী সংস্থাগুলির সাথে তার ব্যবহারকারী এবং যাত্রীদের সেফটি এবং সিকিউরিটি নিশ্চিত করতে সহযোগীতার সাথে কাজ করে চলেছে। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে যে কয়েক হাজার মানুষ আজ জীবিকার জন্য পাঠাওর উপর নির্ভরশীল।

পাঠাও ২০১৬ সাল থেকে রাইড শেয়ারিং পরিষেবাদি সরবরাহ করে আসছে। বর্তমানে পাঠাও প্ল্যাটফর্মে ২ লক্ষেরও বেশি নিবন্ধিত রাইডার এবং প্রায় ৬০ লক্ষ নিবন্ধিত ব্যবহারকারী রয়েছে।

অ্যাপ-ভিত্তিক পরিবহণ পরিষেবাদিগুলি জনপ্রিয় হয়ে উঠায় মন্ত্রিসভা গত বছরের ১৫ জানুয়ারি ঢাকায় অ্যাপ-ভিত্তিক পরিবহণ পরিষেবাদিগুলির কার্যক্রম বৈধকরণের জন্য “রাইড শেয়ারিং সার্ভিস গাইডলাইনস ২০১৭” অনুমোদন করেছে।



source https://wizbd.com/tech-news/37054

0 Response to "পাঠাও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) লাইসেন্স পেয়েছে"

Post a Comment